সাহিত্য

‘সাদেক খান ছিলেন সৃজনশীলতার অনন্য উদাহরণ’

‘ভাষা সংগ্রামী, মুক্তিযোদ্ধা, চলচ্চিত্র নির্মাতা, সাংবাদিক সাদেক খান ছিলেন অসামান্য সৃজনশীল ও প্রকৃত অর্থেই বিচিত্র কর্ম উদ্যোগী একজন মানুষ।’ প্রয়াত সাদেক খানের অসমাপ্ত আত্মস্মৃতিমূলক স্মারক গ্রন্থ ‘আমাদের দাদা সাদেক খান’র মোড়ক উন্মোচন ও প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন।

অ্যাডর্ন পাবলিকেশন থেকে প্রকাশিত বইটির প্রকাশনা অনুষ্ঠান গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে বিচারপতি আবদুল জব্বার খান ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানের সভাপতি সাবেক সচিব ও কূটনীতিক ইনাম আহমেদ চৌধুরী বলেন, ‘যেকোনো মানুষের জন্য এক জীবনে এটি একটি বড় অর্জন। জীবনের সৌন্দর্য্যবোধ, মানুষ ও দেশপ্রেমের অসাধারণ উদাহরণ ছিলেন তিনি।’

সাদেক খানের ছোট ভাই রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘আমাদের পিতার পরে দাদা ছিলেন পরিবারের অভিভাবক। আমাদের সব ভাই-বোন কোনো না কোনোভাবে তার চিন্তা ও কর্ম দ্বারা উপকৃত হয়েছি।’

সাদেক খানের মেজ বোন সেলিমা রহমান বলেন, ‘আমাদের দাদা সাদেক খান ছিলেন অসম্ভব মেধাবী ও কর্মচঞ্চল একজন মানুষ। জীবনে যখন যেটি সত্য বলে উপলব্ধি করেছেন; সেটাই প্রকাশ করেছেন অকপটে।’

সাপ্তাহিক হলিডে’র সম্পাদক সৈয়দ কামালউদ্দীন বলেন, ‘সাদেক খানের আত্মস্মৃতিটুকু পরিপূর্ণভাবে পাওয়া গেলে আমরা তৎকালীন দেশ-সমাজ ও রাজনীতি সম্পর্কে আরও অনেক অজানা কথা জানতে পারতাম। তিনি মানুষের মাঝে বহুদিন বেঁচে থাকবেন তার সাংবাদিকতার ভূমিকার কারণে।’

মুক্তিযোদ্ধা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেও যারা কোন কিছু আশা করেননি, সাদেক ভাই তাদের মধ্যে অন্যতম। অনেক সংগঠন প্রতিষ্ঠার সাথে জড়িত থাকলেও তিনি কোন সুবিধা নেননি।’

অ্যাডর্ন পাবলিকেশনের প্রধান নির্বাহী সৈয়দ জাকির হোসেন বলেন, ‘সাদেক খানের মতো গুণীজনের স্মারকগ্রন্থ প্রকাশ করা আমরা দায়িত্বশীলতা বলে মনে করি।’

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সাদেক খানের ভাই ডেইলি নিউ এজ পত্রিকার প্রকাশক শহীদুল্লাহ্ খান বাদল। অনুষ্ঠানে ‘আমাদের দাদা সাদেক খান’ বই থেকে চুম্বক অংশ পাঠ করেন বইটির সম্পাদক মানোয়ার হোসেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত আলোকচিত্রী গোলাম মোস্তফা, বাংলা একাডেমির সাবেক পরিচালক মনসুর মুসা, লুৎফুন্নেছা খান বিউটি এমপি, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলিপ বড়ুয়া, গণসংহতির প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি এবং লেখক জয়নাল হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ভাষা আন্দোলন ও চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য একুশে পদকপ্রাপ্ত সাদেক খান ২০১৬ সালের ১৬ মে মৃত্যুবরণ করেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close
Close