স্বাস্থ্য

ধূমপানের কারণে শরীরে ব্যথাও হয়!

ধূমপান শরীরের জন্য ক্ষতিকর জেনেও ধূমপান করে। ধূমপানের বদঅভ্যাস একবার শুরু করে তার প্রভাব মানুষ বয়ে বেড়ায় আজীবন। নতুন এক গবেষণায় উঠে এলো ধূশপানের ক্ষতিকর দিক নিয়ে আরেক তথ্য। এতে বলা হচ্ছে- যারা ধূমপান করেন, এমনকি যারা আগে ধূমপান করতেন এবং এখন ছেড়ে দিয়েছেন, তারাও অধূমপায়ীদের চেয়ে বেশি শারীরিক যন্ত্রণা ভোগ করেন।

তবে ধূমপানের সাথে শারীরিক যন্ত্রণার সম্পর্কের বিষয়ে নিশ্চিত কিছু এখনও জানা নেই বিজ্ঞানীদের। গবেষণাটি করেছে ইউসিএল। ২০০৯ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে বিবিসির একটি অনলাইন জরিপে অংশ নেয়া ২ লাখ ২০ হাজার মানুষের তথ্য-উপাত্ত দিয়ে তৈরি করা হয়েছে গবেষণাটি।

গবেষণায় অংশ নেয়া মানুষকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এগুলো হলো- কখনো নিয়মিত ধূমপান করেননি, একসময় নিয়মিত ধূমপান করতেন ও বর্তমানে নিয়মিত ধূমপান করেন।

তাদের তাদের শারীরিক যন্ত্রণার পরিমাণ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয় এবং পরবর্তীতে তাদের উত্তরের ভিত্তিতে তৈরি করা শূন্য থেকে ১০০ পর্যন্ত একটি স্কেলে সেই উত্তর বসানো হয়। যারা কখনো ধূমপান করেননি, তাদের চেয়ে বর্তমান ও সাবেক ধূমপায়ীরা গড়ে ১ থেকে ২ পয়েন্ট বেশি পান, অর্থাৎ তাদের শারীরিক যন্ত্রণার হার অধূমপায়ীদের চেয়ে বেশি।

অথবা বলা যায়, ধূমপান ছেড়ে দিলেও ভবিষ্যতে এই অভ্যাসের কারণে শারীরিক যন্ত্রণা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

গবেষকদের একজন ডক্টর ওলগা পারস্কির মতে গবেষণার প্রধান আবিষ্কার হলো, সাবেক ধূমপায়ীরাও অধূমপায়ীদের চেয়ে বেশি ব্যথায় ভোগেন।

তাদের তাদের শারীরিক যন্ত্রণার পরিমাণ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয় এবং পরবর্তীতে তাদের উত্তরের ভিত্তিতে তৈরি করা শুন্য থেকে ১০০ পর্যন্ত একটি স্কেলে সেই উত্তর বসানো হয়।

যারা কখনো ধূমপান করেননি, তাদের চেয়ে বর্তমান ও সাবেক ধূমপায়ীরা গড়ে ১ থেকে ২ পয়েন্ট বেশি পান, অর্থাৎ তাদের শারীরিক যন্ত্রণার হার অধূমপায়ীদের চেয়ে বেশি।

অথবা বলা যায়, ধূমপান ছেড়ে দিলেও ভবিষ্যতে এই অভ্যাসের কারণে শারীরিক যন্ত্রণা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

গবেষকদের একজন ডক্টর ওলগা পারস্কি বিবিসিকে বলেন, “গবেষণার প্রধান আবিষ্কার হলো, সাবেক ধূমপায়ীরাও অপেক্ষাকৃত বেশি শারীরিক যন্ত্রণা নিয়ে জীবনযাপন করেন।”

ক্যান্সার, হৃদরোগ ও শ্বাসপ্রশ্বাসজনিত রোগ ছাড়াও অন্ধত্ব, বধিরতা, ডায়াবেটিস, স্মৃতিভ্রম এবং বন্ধ্যাত্বের কারণ হতে পারে ধূমপান। এ ছাড়া অপারেশন হওয়ার পর ধূমপায়ীরা সেরে উঠতে অধূমপায়ীদের চেয়ে বেশি সময় নেয়। অধূমপায়ীদের তুলনায় ধূমপায়ীদের অপারেশন সফল না হওয়ার সম্ভাবনাও বেশি থাকে বলে মনে করেন ধূমপানবিরোধী ক্যাম্পেইন গ্রুপ অ্যাশের প্রধান নির্বাহী ডেবোরাহ আরনট।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close
Close